বুধবার, ১২ মে ২০২১, ১০:১৯ am

অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনের ব্যাপারে বেশি সতর্ক কানাডিয়ানরা

অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনের ব্যাপারে বেশি সতর্ক কানাডিয়ানরা

ফাইল ছবি

কানাডায় এখন পর্যন্ত যতগুলো ভ্যাকসিন অনুমোদিত হয়েছে তার মধ্যে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন গ্রহণের ব্যাপারে সবচেয়ে বেশি সতর্ক কানাডিয়ানরা। লেজার অ্যান্ড দ্য অ্যাসোসিয়েশন ফর কানাডিয়ান স্টাডিজের সাম্প্রতিক এক সমীক্ষায় এ তথ্য উঠে এসেছে। 

সমীক্ষায় অংশগ্রহণকারী মাত্র ৫৩ শতাংশ কানাডিয়ান করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষিত থাকতে নিজেদের ও পরিবারের সদস্যদের অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন নেওয়ার পক্ষে মত দিয়েছেন। অন্যদিকে ফাইজার-বায়োএনটেকের ভ্যাকসিনের প্রতি আস্থা ব্যক্ত করেছেন ৮২ শতাংশ এবং মডার্নার ভ্যাকসিনের প্রতি ৭৭ শতাংশ কানাডিয়ান। অর্থাৎ, অ্যাস্ট্রাজেনেকার তুলনায় ফাইজার-বায়োএনটেক ও মডার্নার ভ্যাকসিনের প্রতি কানাডিয়ানদের আস্থা অনেক বেশি। এমনকি সদ্য অনুমোদিত জনসন অ্যান্ড জনসনের ভ্যাকসিনের চেয়েও অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনের প্রতি কম আস্থা দেখিয়েছেন কানাডিয়ানরা। ১ হাজার ৫২৩ জন কানাডিয়ানের ওপর ২৬ থেকে ২৮ মার্চ অনলাইনে সমীক্ষাটি পরিচালনা করা হয়।

৫৫ বছরের কম বয়সীদের অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন না দেওয়ার জন্য সোমবার সুপারিশ করে ন্যাশনাল অ্যাডভাইজরি কমিটি অন ইমিউনাইজেশন। ইউরোপে অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন নেওয়ার পর কয়েক ডজন বিশেষ করে কম বয়সী নারীদের রক্ত জমাট ব*াধার পর এই সুপারিশ করেছে কমিটি। অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন প্রয়োগের বিষয়ে এ নিয়ে তিনবার সুপারিশ বদলালো তারা। ফেব্রুয়ারির শেষ দিকে ৬৫ বছরের বেশি বয়সীদের অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন না দেওয়ার সুপারিশ করেছিল অ্যাডভাইজরি কমিটি।

সমীক্ষায় অংশগ্রহণকারী ৭৮ শতাংশ কানাডিয়ান ভ্যাকসিন নেওয়ার ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছেন। অক্টোবরের তুলনায় এ হার কিছুটা বেশি। ওই সময় ৬৩ শতাংশ কানাডিয়ান ভ্যাকসিন গ্রহণের ইচ্ছা পোষণ করেছিলেন। ৫৮ শতাংশ বলেছেন, সহজলভ্য হলেই তারা প্রথম ডোজের ভ্যাকসিন নেবেন। নভেম্বরের তুলনায় এ হার ৩০ শতাংশীয় পয়েন্ট বেশি। তবে অন্য ভ্যাকসিনের সরবরাহ পর্যাপ্ত না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে চান আরও ২৪ শতাংশ কানাডিয়ান। 

 

Comments