Sun 18th Feb 2018, 5:01 pm

অটোরিকশার ‘ইকোনোমিক লাইফ’ বৃদ্ধি আইনের লঙ্ঘন

অটোরিকশার ‘ইকোনোমিক লাইফ’ বৃদ্ধি আইনের লঙ্ঘন

 


মালিকপক্ষের দাবি অনুযায়ী সিএনজিচালিত অটোরিকশার ইকোনোমিক লাইফ (আয়ুষ্কাল) বৃদ্ধি করলে তা মোটরযান আইনের লঙ্ঘন হবে বলে দাবি করেছেন শ্রমিকরা।
 

 

বুধবার (১১ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১১টায় ঢাকা জেলা অটোরিকশা শ্রমিক ইউনিয়নের আয়োজনে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করেন তারা।
 
সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, গত ৩ অক্টোবর ‘ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরী সিএনজি অটোরিকশা মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ’ সংবাদ সম্মেলন করে। সেখানে তারা ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে চলাচলরত সিএনজিচালিত অটোরিকশার পুরনো ইঞ্জিন ও গ্যাস সিলিন্ডার প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে ইকোনোমিক লাইফ (আয়ুষ্কাল) ৬ বছর বৃদ্ধির দাবি করেছেন। আমরা এ দাবির তীব্র বিরোধিতা করছি।
 
বক্তারা বলেন, বিআরটিএ যদি মালিকদের এ দাবি মেনে নেয় তাহলে তা হবে জনস্বার্থ পরিপন্থি, মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ এবং মোটরযান আইনের লঙ্ঘন।
 
কারণ এসব যানের মেয়াদকাল ছিলো ১১ বছর। আগে মালিকদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বিআরটিএ বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের যন্ত্রকৌশল বিভাগের কাছে কত বছর মেয়াদ বৃদ্ধি করা যাবে তার পরামর্শ নেয়। সেখানে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই বিভাগ সর্বোচ্চ ১১ থেকে ১৫ বছর পর্যন্ত বৃদ্ধির সুপারিশ করে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৪ সালের ২৩ মে মেয়াদ বৃদ্ধি করে ১১ থেকে ১৫ করা হয়।
 
বক্তারা বলেন, বর্তমানে মালিকপক্ষ আবারো ৬ বছরের মেয়াদ বৃদ্ধির দাবি করছেন। তাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এ মেয়াদ বৃদ্ধি করা হলে তা চালক ও যাত্রীদের জন্য বিপজ্জনক হবে, বাড়বে দুর্ঘটনা। কারণ ১৫ বছর ব্যবহৃত ড্যামেজ চেসিসে নতুন ইঞ্জিন দিয়ে আবার রাস্তায় অটোরিকশা নামালে যেকোনো সময় চেসিস ভেঙে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

Comments