শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ২:২৪ pm

মাস্ক না পরলে বুথে গিয়ে ভোট নয়

মাস্ক না পরলে বুথে গিয়ে ভোট নয়

২০ সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে তারা বুথে গিয়ে সরাসরি ভোট দেওয়ার সুযোগ নাও পেতে পারেন

যেসব কানাডিয়ান মাস্ক পরতে অস্বীকৃতি জানাবেন ২০ সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে তারা বুথে গিয়ে সরাসরি ভোট দেওয়ার সুযোগ নাও পেতে পারেন। স্থানীয় জনস্বাস্থ্য ইউনিটের পক্ষ থেকে যেখানে মাস্ক পরিধানের নিয়ম রয়েছে ইলেকশন্স কানাডা সেসব এলাকার ভোটকেন্দ্রে একই নিয়ম চালু করবে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা স্টিফেন পেরো।

এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী যদি আপনাকে মাস্ক না পরতে হয় তাহলে আপনাকে সশরীরে ভোটদানে বিরত রাখা হবে না। কিন্তু এটা যদি নিতান্তই আপনার ব্যক্তিগত পছন্দ হয়ে থাকে এবং আপনার এলাকায় মাস্ক বাধ্যতামূলক হয় তাহলে আপনার ক্ষেত্রেও আমরা তা প্রয়োগ করবো।

বরং যারা মাস্ক পরতে চান না বা পরবেন তাদেরকে ডাকযোগে ভোট প্রদানে উৎসাহিত করেন পেরো। তিনি বলেন, কোভিড-১৯ মহামারির মধ্যে ভোটাররা কিভাবে ভোট দেবেন সে পরিকল্পনা করা তাদের দায়িত্বের মধ্যেই পড়ে।

২ লাখ ৫০ হাজার নির্বাচন কর্মকর্তার ক্ষেত্রে ভ্যাকসিন গ্রহণ বাধ্যতামূলক না করার যে সিদ্ধান্ত তারও সমর্থন করেন প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা। যদিও মহামারির পরিস্থিতি খারাপ হলে এ সিদ্ধান্ত বদলও হতে পারে। অধিকাংশ নির্বাচন কর্মীই পুরোপুরি ভ্যাকসিনেটেড হবেন এই আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি বলেন, এই মানুষগুলোর সঙ্গে গ্রোসারি স্টোরে আপনাদের দেখা হয়। পার্থক্যটা হলো ভোট নেওয়া একটা নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে, যেখানে সুরক্ষা ব্যবস্থা কঠোরভাবে প্রয়োগ করা হয়ে থাকে। ইলেকশন্স কানাডা জনস্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের সঙ্গে পরামর্শ অব্যাহত রেখেছে এবং তাদের সুপারিশ অনুযায়ী পদক্ষেপগুলো পুনর্বিন্যাস করা হবে। তবে এখন পর্যন্ত যে সুপারিশ তাতে ভ্যাকসিনেশনের বিষয়টি বাধ্যতামূলক করা হয়নি।

কানাডার প্রধান জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. তেরেসা ট্যাম আগেই বলেছেন, যতক্ষণ পর্যন্ত জনস্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিধিবিধানগুলো সঠিকভাবে মানা হচ্ছে ততক্ষণ পর্যন্ত সশরীরে ভোট দেওয়া পুরোপুরি নিরাপদ।

২০ সেপ্টেম্বর কানাডার জাতীয় নির্বাচনের দিক প্রত্যেক নির্বাচন কর্মীকে বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক পরতে হবে এবং তারা থাকবেন পেক্সিগ্লাসের পেছনে। ভোটকেন্দ্রে ভোটারদেরকে মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও একবার ব্যবহারযোগ্য পেন্সিল সরবরাহ করা হবে। ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।

মহামারির কারণে ইলেকশন্স কানাডা ধারণা করছে, ৫০ লাখ পর্যন্ত ভোটার ডাকযোগে ভোট দিতে পারেন। গত নির্বাচনের তুলনায় তা অনেক বেশি। ২০১৯ সালের জাতীয় নির্বাচনে মাত্র ৫০ হাজার ভোটার ডাকযোগে ভোট দিয়েছিলেন।

 

Comments