শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৬:০৮ pm

কানাডার পথে অলিম্পিকে অংশ নেওয়া ৩ শরনার্থী

কানাডার পথে অলিম্পিকে অংশ নেওয়া ৩ শরনার্থী

রোজ নাথিক লিকোনিয়েন, পাওলো আমোতুন লোকোরো ও জেমস নিয়াঙ্গ

টোকিও অলিম্পিকে অংশগ্রহণকারী দক্ষিণ সুদানের তিন শরনার্থী শিক্ষার উদ্দেশে কানাডায় আসছেন। সহিংসতার কারণে বাস্তুচ্যুতদের শিক্ষার উদ্দেশ্য পূরণে কানাডায় চলমান একটি কর্মসূচির আওতায় এ সুযোগ পাচ্ছেন তারা। টোকিও অলিম্পিকের রিফিউজি অলিম্পিক দলের সদস্য এই তিনজন। তারা হলেন রোজ নাথিক লিকোনিয়েন, পাওলো আমোতুন লোকোরো ও জেমস নিয়াঙ্গ চিয়েঙ্গইয়েক। অন্টারিওর ওকভিলের শেরিডান কলেজে ভর্তির সুযোগ পাচ্ছেন তারা।
শেরিডানের প্রেসিডেন্ট জ্যানেট মরিসন এক সাক্ষাৎকারে এ প্রসঙ্গে বলেন, তাদের জীবন পুনর্গঠনের ও তাদের যাত্রা সাফল্যমন্ডিত করার সুযোগ পেয়েছি আমরা। এজন্য আমরা গর্বিত।
তিনজনই সহিংসতার বলি হয়ে শৈশবে দক্ষিণ সুদান ছেড়ে কেনিয়ার কাকুমা শরনার্থী শিবিরে আশ্রয় নিতে বাধ্য হন। এখনও তারা সেখানেই বসবাস করছেন। লিকোনিয়েন চিয়েঙ্গইয়েক ২০১৬ সালের রিও ডি জেনিরো অলিম্পিকে রিফিউজি অলিম্পিক টিমের হয়ে ৮০০ মিটার দৌড়ে অংশ নিয়েছিলেন। লোকোরো অংশ নিয়েছিলেন ১,৫০০ মিটার দৌড়ে।
অ্যাথলেটদের অন্টারিওতে আনতে জাতিসংঘের শরনার্থী বিষয়ক হাইকমিশনার, ইন্টারন্যাশনাল অলিম্পিক কমিটি ও অলাভজনক প্রতিষ্ঠান ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি সার্ভিস অব কানাডার সঙ্গে কাজ করছে শেরিডান। এই তিন শরনার্থী প্রথম বছরে শেরাডিন কলেজে লিটারেসি, নিউমারেসি ও ক্রিটিক্যাল থিংকিংয়ে পাঠ নেবেন। পরবর্তীতে তারা তাদের পছন্দ অনুযায়ী ও ক্যারিয়ারের সঙ্গে উপযোগী বিষয় বেছে নেওয়ার সুযোগ পাবেন। কলেজ কর্তৃপক্ষ তাদেরকে অ্যাকাডেমিক পরমার্শের পাশাপাশি শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য সেবা প্রদান করবে। একই সঙ্গে আবাসন সুবিধাও দেওয়া হবে তাদেরকে।
আরও অনেক শরনার্থীর যে সাহায্যের প্রয়োজন এই তিন অ্যাথলেট সে সম্পর্কিত সচেতনতা সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবেন বলে জানিয়েছে ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি সার্ভিস অব কানাডা। অন্যান্য দেশও একইভাবে শরনার্থীদের সাহায্য করবে বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছে জাতিসংঘের শরনার্থী বিষয়ক হাইকমিশনার।

Comments