শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৬:৩১ pm

কানাডায় ফিরছে টরন্টো ব্লু জেস


কানাডায় ফিরছে টরন্টো ব্লু জেস

টরন্টো ব্লু জেস ৩০ জুলাই থেকে কানসাস সিটি রয়ালের সঙ্গে তিনটি ম্যাচ খেলবে...ছবি/ব্লুজেস

 টরন্টো ব্লু জেস ভক্তরা রজার্স সেন্টারে ভ্লাদিমির গুয়েরেরো জুনিয়রকে শেষবার দেখেছিলেন ২২ মাস আগে। তারপর থেকে বাঁহাতি হিউন-জিন রিউ অথবা ব্লু জেসের পোশাকে জর্জ স্প্রিঙ্গারকে কোনো ফ্রি এজেন্টের সাইনিং করতেও দেখা যায়নি। 

বেসবল যাযাবর হিসেবে প্রায় দুই বছর কাটানোর পর অবশেষে ঘরে ফিরছে ব্লু জেস। টরন্টোতে খেলার জন্য শুক্রবার ফেডারেল সরকারের অনুমতি পেয়েছে টরন্টোভিত্তিক বেসবল দলটি। এরপর এক বিবৃতিতে দলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, জাতীয় স্বার্থে অব্যাহতি পাওয়ার পর ৩০ জুলাই থেকে রজার্স সেন্টারে আবার খেলা শুরু করবে তারা। 

ফেডারেল অভিবাসন মন্ত্রীর কার্যালয় থেকে অব্যাহতির বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। এর ফলে কানাডার কোভিড-১৯ সংক্রান্ত যে ভ্রমণ বিধিনিষেধ আছে তা পরিপালন ছাড়াই সীমান্ত অতিক্রম করতে পারবেন খেলোয়াড়রা।

অভিবাসন মন্ত্রী মার্কো মেন্ডিসিনো এক বিবৃতিতে এ প্রসঙ্গে বলেন, কানাডার জনস্বাস্থ্য এজেন্সির সঙ্গে মিলে প্রাদেশিক ও মিউনিসিপ্যাল জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের অনুমোদনে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে সীমান্ত অতিক্রমের আগে ও পরে প্রত্যেকের কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা হবে। ভ্যাকসিন না নেওয়া ব্যক্তিদের সপ্তাহে চারদিন অতিরিক্ত পরীক্ষা করা হবে। ভ্যাকসিন না নেওয়া ব্যক্তিদের উপস্থিতিও লক্ষণীয় হারে কমিয়ে আনা হবে এবং তাদেরকে পরিমার্জিত কোয়ারেন্টিন পদ্ধতির মধ্য দিয়ে যেতে হবে। হোটেল ও স্টেডিয়াম ছাড়া তারা অন্য কোথাও যেতে পারবেন না। সাধারণ জনগণের সঙ্গে মিলিত হওয়ার সুযোগও পাবেন না তারা।

টরন্টো ব্লু জেস ৩০ জুলাই থেকে কানসাস সিটি রয়ালের সঙ্গে তিনটি ম্যাচ খেলবে। জেস রজার্স সেন্টারে শেষবারের মতো বেসবল খেলেছিল ২০১৯ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর। ওই ম্যাচে টাম্পা বেকে তারা ৮-৩ ব্যবধানের হারিয়েছিল। টরন্টোর দলটি সংক্ষিপ্ত ২০২০ মৌসুমের হোম গেম খেলেছিল নিউইয়র্কের বাফেলোতে। বাফেলোতে ফেরার আগে এই মৌসুম শুরু করে ডুনেডিনে। 

দলের পক্ষ থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, প্রথমেই নজিরবিহীন জনস্বাস্থ্য সম্পর্কিত বিধিবিধান পরিপালন ও দলকে সমর্থন জানানোর জন্য কানাডিয়ানদের ধন্যবাদ জানাচ্ছে বুল জেস। আপনাদের সমর্থন ছাড়া ব্লু জেসের পক্ষে এই গ্রীষ্মে ঘরে ফেরা সম্ভব ছিল না। 

 

 

 

 

Comments