রবিবার, ১ আগস্ট ২০২১, ১০:১০ am

ভ্যাকসিন না নেওয়া পর্যটকেদের জন্য কানাডার দরজা বন্ধ

ভ্যাকসিন না নেওয়া পর্যটকেদের জন্য কানাডার দরজা বন্ধ

১২ বছর বা তার বেশি বয়সী ৭৮ শতাংশ কানাডিয়ান অন্তত এক ডোজ ভ্যাকসিন নিয়েছেন

যেসব বিদেশি পর্যটক ভ্যাকসিন নেননি তাদেরকে বেশ কিছু সময়ের জন্য কানাডায় প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। কারণ, সংক্রমণ রোধে যে অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে তাকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দিতে চায় না তার সরকার।
ভ্যাকসিন না নেওয়া পর্যটকরা কানাডায় প্রবেশের সুযোগ পাবেন কিনা বৃহস্পতিবারের সংবাদ সম্মেলনে জাস্টিন ট্রুডোকে এই প্রশ্ন করেন সাংবাদিকরা। জবাবে তিনি বলেন, শিগগিরই যে এটা হচ্ছে না সেটা আমি আপনাদেরকে আমি বলতে পারি।
পুরোপুরি ভ্যাকসিনেটেড কানাডিয়ানদের দেশে ফেরার পর কোয়ারেন্টিনে থাকার বাধ্যবাধকতা রোহিত করেছে কানাডা। তবে অনাবশ্যক বিদেশি ভ্রমণকারীদের এখনও সীমান্ত পার হয়ে কানাডায় প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়নি। যদিও এ নিয়ে দেশটির ক্ষতিগ্রস্ত পর্যটন খাতের তরফ থেকে সরকারের ওপর চাপ রয়েছে।
এদিকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের ক্ষেত্রে ভ্রমণকারীদের ভ্যাকসিনেটেড হওয়ার কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। এই অবস্থায় পুরোপুরি ভ্যাকসিনেটেড ভ্রমণকারীদের জন্য সীমান্ত বিধিনিষেধ শিথিল করা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে বলে জানান কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। তিনি বলেন, পুরোপুরি ভ্যাকসিনেটেড বিদেশি ভ্রমণকারীদের প্রবেশের অনুমতি দেওয়ার ক্ষেত্রে কি পদক্ষেপ নেওয়া যায় সে ব্যাপারে আমরা চিন্তা-ভাবনা করে দেখছি। আসছে সপ্তাহগুলোতে এ ব্যাপারে আরও তথ্য আমরা দিতে পারব।
এর আগে তিনি বলেছিলেন, দেশে ভ্যাকসিনেশনের হার, উদ্বেগ ছড়ানো ভ্যারিয়েন্টের বিস্তার ও বাকি বিশ^ কিভাবে কোভিড-১৯ মোকাবেলা করছে সে দিকে নজর রাখছে কর্তৃপক্ষ। স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের বৃহস্পতিবার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ১২ বছর বা তার বেশি বয়সী ৭৮ শতাংশ কানাডিয়ান অন্তত এক ডোজ ভ্যাকসিন নিয়েছেন। আর পুরোপুরি ভ্যাকসিনেটেড হয়েছে ১২ বছর বা তার বেশি বয়সী প্রায় ৪৪ শতাংশ কানাডিয়ান।
বিশে^র দীর্ঘতম স্থল সীমান্তটি খুলে দেওয়ার ব্যাপারে কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্র সরকারের ওপর অব্যাহতভাবে চাপ বাড়ছে। ২০২০ সালের মার্চ থেকে সীমান্ত দিয়ে সব ধরনের অনাবশ্যক ভ্রমণ বন্ধ রাখা হয়েছে। বিদ্যমান এই বিধিনিষেধ অন্তত ২১ জুলাই পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।

 

Comments