শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৭:৪৩ pm

সংক্রমণ বাড়ছে অন্টারিওর লং-টার্ম কেয়ার হোমগুলোতে

সংক্রমণ বাড়ছে অন্টারিওর লং-টার্ম কেয়ার হোমগুলোতে

ছবি/এ্যাওয়ার্ড জোনস লং টার্ম কেয়ার হোমের সৌজন্যে

কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ বাড়তে থাকায় পরিস্থিতি সামাল দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে অন্টারিওর লং-টার্ম কেয়ার হোমগুলোকে। এ পরিস্থিতির জন্য দায়ী মূলত অতি সংক্রামক ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট। সর্বপ্রথম ভারতে সনাক্ত হয় করোনাভাইরাসের এ ধরণটি।

হল্টন জনস্বাস্থ্য বিভাগ বার্লিংটনের ট্যান্সলি উডস লং-টার্ম কেয়ার হোমে কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে বলে গত ২৮ জুন ঘোষণা করেছে। ওইদিন সেখানে সংক্রমিত বাসিন্দা ছিলেন মাত্র তিনজন। তবে বর্তমানে সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা ১৬ এবং তাদের মধ্যে একজন আবার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হয়েছেন।

কেয়ার হোমটির মহাব্যবস্থাপক জো-আনা গার্ড বলেন, সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ নিরীক্ষার জন্য জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তারা ট্যান্সলি উডস গ্রামের লং-টার্ম কেয়ার হোমে উপস্থিত ছিলেন এবং হোমের মেডিক্যাল ডিরেক্টরকে সহায়তার জন্য আমাদের বিশেষজ্ঞরাও সেখানে ছিলেন। আক্রান্ত নেবারহুডগুলোতে দলের সদস্য সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে আরও সংক্রমণ যাতে না ঘটে সেজন্য সম্ভাব্য সবকিছুই করা হচ্ছে।

গার্ড বলেন, লং-টার্ম কেয়ার হোমের ৮৬ শতাংশ কর্মীকে প্রথম ডোজের ভ্যাকসিন এরই মধ্যে দেওয়া হয়েছে। ভ্রামমাণ ভ্যাকসিনেশন ক্লিনিকের ফলে পূর্ণাঙ্গভাবে ভ্যাকসিনেটেড কর্মীর সংখ্যা আগামীতে বাড়বে।

লং-টার্ম কেয়ার হোমটির আক্রান্ত বাসিন্দাদের মধ্যে ঠিক কতজন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন নিয়েছেন সে তথ্য জানানো হয়নি। আক্রান্তদের মধ্যে কাউকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে কিনা সেটাও জানানো হয়নি।

প্রাদেশিক সরকারের হিসাব অনুযায়ী, ৩০ মে পর্যন্ত অন্টারিওর লং-টার্ম কেয়ার হোমের ৯৭ শতাংশ বাসিন্দাকে উভয় ডোজের ভ্যাকসিনই দেওয়া হয়েছে। কেয়ার হোমের কর্মীদের ভ্যাকসিনেশনের একটি নীতিও ঘোষণা করেছে সরকার। এর আওতায় প্রত্যেক কর্মীকে হয় ভ্যাকসিন নেওয়ার পক্ষে প্রমাণ দেখাতে হবে অথবা ভ্যাকসিন না নিলে তার স্বপক্ষে কারণ দর্শাতে হবে। অথবা ভ্যাকসিনেশনের সুফল সম্পর্কে শিক্ষা কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করতে হবে।  

 

Comments