শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১, ৩:১৯ am

কোভিড টেস্টিং নিয়ে এয়ারলাইন্সগুলোর সতর্ক প্রতিক্রিয়া


কোভিড টেস্টিং নিয়ে এয়ারলাইন্সগুলোর সতর্ক প্রতিক্রিয়া

বিদেশ থেকে আসা যাত্রীদের কোভিডমুক্ত সনদ প্রদর্শন বাধ্যতামূলক করে যে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে, সে ব্যাপারে আরও ব্যাখ্যার প্রয়োজন আছে বলে জানিয়েছে ন্যাশনাল এয়ারলাইন্স কাউন্সিল অব কানাডা (এনএসিসি)। গত বৃহস্পতিবার এ মন্তব্য করেছে সংগঠনটি।

ফেডারেল সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী, ৭ জানুয়ারি থেকে কানাডা অভিমুখী পাঁচ বা তার বেশি বয়সী সব যাত্রীকে কোভিড-১৯মুক্ত সনদ দেখাতে হবে। উড়োজাহাজে আরোহনের আগে পিসিআর টেস্টের মাধ্যমে কোভিডমুক্ত কাগজপত্র এয়ারলাইন্সগুলোকে দেখাতে হবে। পরীক্ষাটি হতে হবে নির্ধারিত ভ্রমণের ৭২ ঘণ্টার মধ্যে।

এনএসিসির প্রেসিডেন্ট ও সিইও মাইক ম্যাকন্যানি বলেন, যে ফরম্যাটে যাত্রীরা তাদের পরীক্ষার ফলাফল প্রদর্শন করবে, সেটি আরও পরিস্কার করা দরকার। ব্যবস্থাটির প্রতি আমাদের পূর্ণ সমর্থন রয়েছে। তবে এটা হতে হবে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

ন্যাশনাল এয়ারলাইন্স কাউন্সিল অব কানাডা হচ্ছে সেদেশের বৃহৎ এয়ারলাইন্গুলোর বাণিজ্যিক সংগঠন। এর সদস্যদের মধ্যে আছে এয়ার কানাডা, এয়ার ট্রানসাট ও ওয়েস্টজেট।

সংগঠনটির প্রেসিডেন্ট ম্যাকন্যানির ভাষ্য, নতুন পদক্ষেপের বিষয়ে এয়ারলাইন্সগুলোর সঙ্গে পরামর্শ না করা হলে এয়ারলাইন্স, যাত্রী এবং যারা এটি বাস্তবায়নের দায়িত্বে আছেন তাদের মধ্যে বিভ্রান্তি তৈরি হতে পারে।

ব্লক কুইবেকোয়িসের নেতা ইভস ফ্রাসোয়াঁ ব্লাশে বলেন, পরীক্ষা শুধু বিমানবন্দরে নয়, সব সীমান্তেই করা উচিত। নতুন পরিকল্পনার কারণে কেউ যদি মনে করেন তার বাড়তি খরচ হচ্ছে তাহলে সরকারের উচিত থাকে অর্থ সহায়তা দেওয়া।

আর্থিক সহায়তার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক যাত্রীদের ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনের বাধ্যবাধকতা থেকেও অব্যাহতি চেয়েছে এয়ারলাইন্সগুলোর সংগঠনটি। এর পরিবর্তে বিামনবন্দরেই পরীক্ষার ব্যবস্থা করার আহ্বান জানিয়েছে তারা। তবে বৃহস্পতিবার সরকারের তরফ থেকে যখন নতুন পরিকল্পনাটি ঘোষণা করা হয় তখন ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনও থাকবে বলে জানিয়ে দেওয়া হয়।

কানাডিয়ান এয়ারপোর্ট কাউন্সিলের প্রেসিডেন্্ট ড্যানিয়েল রবার্ট গুচ বলেন, পরীক্ষার পরও ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন চালু থাকলে আন্তর্জাতিক যাত্রীদের ওপর কড়াকড়ির মাত্রাটা বেশি হয়ে যাবে।

এদিকে ৩ লাখ বিমানকর্মীর সংগঠন ইউনিফর বৃহস্পতিবার বিকালে এয়ারলাইন্স খাতে অর্থ সহায়তা দিতে সরকারের প্রতি আবারও দাবি জানিয়েছে। ইউনিফরের প্রেসিডেন্ট জেরি ডায়াস বলেন, জনগণের সুরক্ষায় আকাশ ভ্রমণে কোভিডমুক্ত সনদের বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ। তবে এটাও ঠিক, খাতটিতে সহায়তা দেওয়ার ব্যাপারে সরকারের অনীহা এ খাতে কর্মরত ৩ লাখ মানুষকে বিপদের মুখে ঠেলে দিচ্ছে। 

Comments