Sat 4th Apr 2020, 4:33 am

আমরা আরো সাফল্য চাই : বিশ্বজয়ী আকবর

আমরা আরো সাফল্য চাই : বিশ্বজয়ী আকবর

বাংলামেইল ডটকম ডেস্ক

বিশ্বকাপ জয়ী দলের অধিনায়ক আকবর আলী বলেছেন, আমরা আরো সাফল্য চাই।  বাংলাদেশ ক্রিকেটে অনূর্ধ্ব- ১৯ বিশ্বকাপ জয়ই যেন শেষ সাফল্য না হয়। এই সাফল্যের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে। তাহলে বিশ্বের দরবারে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ৩টায় রংপুর পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে গণ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন বিশ্বজয়ী আকবর আলী। রংপুর জেলা প্রশাসন ও জেলা ক্রীড়া সংস্থা এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

সকাল থেকে আকবরকে বরণ করে নিতে অপোয় থাকা হাজারো মানুষের ভিড়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে যায় আকবর আলী। নিজ জেলার মানুষদের কাছে বিশ্বকাপ জয়ের অনুভূতি ব্যক্ত করে বলেন, আপনারা আমার জন্য আপনাদের অনেক মূল্যবান সময় নষ্ট করে এসেছেন। আমি আপনাদের ভালোবাসার কাছে কৃতজ্ঞ। আমি ঋণী হয়ে গেছি। দেশের জন্য কিছু করতে চাই। এজন্য এখনকার মতো আগামীতেও আপনাদের সাপোর্ট চাই।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, জেলা প্রশাসক আসিব আহসান,বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক আনোয়ারুল ইসলাম, মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি মন্ডল।

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ক্রীড়া প্রতিষ্ঠান ও সংস্থা, শিাঙ্গনের শিার্থী ও ক্রীড়ানুরাগী সাধারণ জনগণ তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

এসময় জন্মস্থান রংপুরে পৌঁছে গণ সংবর্ধনায় সবার সমর্থন ও ভালবাসা তার চলার পথকে আরো এগিয়ে নেবে বলে জানান আকবর আলী।

এর আগে ১২টা ২০ মিনিটে নীলফামারী সৈয়দপুর বিমানবন্দরে নভোএয়ার থেকে নামেন তিনি। তার সাথে ক্রিকেটার পঞ্চগড়ের শরিফুল ইসলাম ও কুড়িগ্রামের শাহীন আলমও নামেন। তাদের সাথে স্বজনরাও ছিলেন।

সন্ধ্যায় তাকে সিটি করপোরেশন ও স্থানীয় এলাকাবাসী তাকে গণ সংবর্ধনা দেন। উল্লেখ্য-আকবর শুরুতে মাদরাসায় ভর্তি হলেও পরে বাড়ির পাশে বেগম রোকেয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করে নগরীর লায়ন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজে ভর্তি হন। কাস সিক্সে উঠে রংপুরের অসীম মেমোরিয়াল ক্রিকেট একাডেমিতে ভর্তি হন। সেখানে অঞ্জন সরকারের হাত ধরে রংপুর জিলা স্কুলের মাঠে তার ক্রিকেটের সত্যিকারের হাতেখড়িটাও হয়ে যায়। ২০১২ সালে বিকেএসপিতে সুযোগ পান। এরপর শুধুই এগিয়ে যাওয়ার গল্প তৈরি করে আকবর।

বিকেএসপির বয়সভিত্তিক দলে খেলে সুযোগ পেয়ে যান জাতীয় অনূর্ধ্ব-১৭ দলে। নেতৃত্ব দেওয়ার অভিজ্ঞতাও হতে থাকে সমানতালে।

শুধু ক্রিকেট নিয়েই অবশ্য পড়ে থাকেননি আকবর। পড়াশোনাটাও দারুণভাবে করেছেন তিনি। ২০১৬ সালে তার এসএসসি পরীার সময় চলছিল প্রথম বিভাগ ক্রিকেট লিগ। তখন খেলা ও লেখাপড়া দুটিই সামলেছেন দারুণ মনোযোগে। এসএসসিতে জিপিএ-৫ পান তিনি। এইচএসসিতে জিপিএ ৪.৪২।

Comments